গুগল এডস এপ্রুভাল পাওয়ার জন্য কিছু দিকনেদর্শনা

১/ এমন টপিক নিয়ে লিখুন যেসব বিষয়ের উপর গুগলের কাছে বিজ্ঞাপন রয়েছে । এখন সেটা কিভাবে বুঝবেন গুগলের কাছে কোন টপিকের উপর বিজ্ঞাপন বেশি রয়েছে ? তা জানতে হলে skyfu সাইটটি ব্যবহার করে দেখতে পারেন ।


এই সাইটে গিয়ে আপনার নিশটা লিখে সেখানে সার্চ করুন তাহলে সাইটটি দেখাবে আপনার টপিকের উপর গুগলের কাছে কেমন বিজ্ঞাপন রয়েছে । [ এর কারণ আপনি যদি গুগলের কাছে রয়েছে বিজ্ঞাপন অনুযায়ী কনটেন্ট পাবলিশ করেন তাহলে দ্রুত এডসেন্স পাবার সম্ভবনা বেশি থাকে ।


২/ আর্টিকেলে LSI কিওয়ার্ডযুক্ত করুন । LSI কিওয়ার্ড বলতে বুঝায় সেসব কিওয়ার্ড যা আপনি কোনোকিছু গুগলে সার্চ করলে গুগল সবার শেষে সাজেষ্ট করে থাকে । তাহলে আপনার আর্টিকেল রেংকিংও ভালো করবে ।


৩/ প্রতিটি আর্টিকেলের গড় শব্দ ১৪০০ শব্দের রাখার চেষ্টা করুন । [ আমি এই নিয়ে ৭টা এডসেন্স পেলাম এবং সবকটি সাইটের গড় শব্দ ছিলো ১৫০০+ শব্দের , এবং যার ফলে আমাকে কখনো ২০টার বেশি পোষ্ট করতে হয়নি এডসেন্স এপ্রুভাল পেতে তাই বুজে শুনে আরটিকেল লিখবেন ।


৪/ নতুন সাইটে ডাউনলোড , এডস অথবা বিজ্ঞাপন , হ্যাকিং ,লিংক এইসব শব্দ ব্যবহার করবেন নাহ । [ এডসেন্স এপ্রুভ হয়ে গেলে ব্যবহার করতে পারেন ] । তবে ডাউনলোড লিংক সরাসরি দিলে এডস লিমিট ও কিছুদিনের মধ্যে সাসপেন্ড খেতে পারেন । [ সেক্ষেত্রে গুগল ড্রাইভের লিংক দিতে পারেন ]


৫/ লাইভ স্ট্রিমিং ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে আর্টিকেল প্রকাশ করবেন নাহ তবে নিজে লিখতে ট্রাই করবেন ।


৬/ এমন সাইটকে লিংক করবেন নাহ যাদের ssl সার্টিফিকেট নেই । এবং এমন কোনো ইন্টারনাল ও এক্সটারনাল লিংক দিবেন নাহ যা এখন exist করে নাহ । [ যার ফলে 404 error দেখাবে ]


৭/ এমন সাইটের সাথে লিংক করবেন নাহ যা আপনার সাইটের অথবা যে পোষ্ট লিখেছেন তার সম্পর্কিত নাহ । তাহলে গুগল [ misleading webpage প্রবলেম ধরে থাকে ]


৮/ সাইটের নেভিগেশন ঠিক থাকা চাই । যেমন : ক্যাটাগরিগুলোকে মেইন মেনুতে যুক্ত করে দেওয়া ।এবং contact us,about us,term and condition ,privacy policy পেইজ গুলোকে Footer menuতে যুক্ত করে দেওয়া ।


৯/ সাইটকে মোবইল রেসপনসিভ করে তৈরী করা । কারণ বেশিরভাগ ট্রাফিক মোবাইল থেকেই আসে তাই সাইট মোবাইল ফ্রেন্ডলি অবশ্যই হতে হবে ।


ব্লগ সাইট করে যদি এডসেন্স থেকে ইনকাম করার কথা চিন্তা করে থাকেন তাহলে সাইটকে কখনো বেশি ডিজাইন করবেন নাহ । সাইটকে সিম্পলভাবে প্রফেশনাল লুক দেওয়ার চেষ্টা করুন । [ অতিরিক্ত ডিজাইন সাইটের লোডিং টাইম বাড়িয়ে দেয় ]১০/ যে থিমটা ব্যবহার করছেন তা কি এডস ফ্রেন্ডলি তা চেক করে দেখুন । আমার কাছে ফ্রি সবচেয়ে ভালো একটা ওয়ার্ডফ্রেস থিম হচ্ছে : Oceanwp Theme । ফ্রিমিয়াম প্রায় সব থিমেই গুগল এডসেন্স পাওয়া যায় তবে Generatepress ভালো কাজ করতে দেখা যায় । আমার সাইট oceanwp দিয়েই তৈরী করা ঘুরে আসতে পারেন ।
১১/ গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার আগে সাইটে স্লাইডার,পপআপ ব্যবহার না করাই বেস্ট ।[ অর্থাৎ সাইট হবে একদম সাদামাঠা ]১২/ contact us, about us, terms and condition page , privacy policy pageগুলো খুব ভালো করে সঠিক তথ্য দিয়ে তৈরী করুন । টার্মস এন্ড কন্ডিশন ও প্রাভেসি পলিসি পেইজ তৈরীর জন্য নতুনরা ইন্টারনেটের বিভিন্ন সাইটের সাহায্য নিতে পারেন । অনেক সাইট রয়েছে যারা এই পেইজগুলো জেনারেট করে দিয়ে থাকে ।


১৩/ ওয়েবসাইট সিকিউরিটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে এডসেন্স পেতে । আপনি যদি ssl সার্টিফিকেট একটিভ না করে থাকেন তাহলে গুগলের কাছে আপনার সাইটটি নিরাপদ নয় ।
এছাড়াও নালড ও ক্র্যাক থিম – প্লাগিন ব্যবহার যদি করে থাকেন তাহলে অনেক সময় সাইটে ভাইরাস আক্রমন হবে । যার ফলে ক্রোম বাউজারে “ red screen deceptive “ Error আসতে পারে
। তাই সাইটকে সিকিউরিটি ফুল করে রাখতে হবে যেন সমস্যা না হয় ।


১৪/ সাইট স্পিড অপটিমাইজেশন করাও গুরুত্বপূর্ণ । কারণ যখন আপনার সাইট দ্রুত লোড হবে তখন আপনার সাইট ইউজারের কাছে খুব ভালো লাগবে এবং গুগলও এমন সাইটকে দ্রুত রেংকিং দিয়ে থাকে । যার ফলে আপনি প্রচুর ট্রাফিকও পাবেন এবং ট্রাফিক যেসব সাইটে থাকে সেসব সাইটে গুগল ৯০% এপ্রুভ দিয়ে দেই ।


১৫/ সাইটে যেখানে ইমেইজ বা ব্যানারের জন্য জায়গা বা ডিজাইন করা হয়েছে সেখানে ইমেইজ বা ব্যানার ইমেইজ ব্যবহার করুন অন্যাথায় গুগল “ ‍site construction ”য়ে রয়েছে এমন মনে করে তাহলে সমস্যা ধরবে সাইটে ক্ষতি হতে পারে ।


১৬/ ট্রেন্ডিং টপিক নিয়ে আর্টিকেল প্রকাশ করলে গুগল এডসেন্স দ্রুত এপ্রুভাল পাওয়া যেতে পারে তাই এই বিষয় টা মাথায় রাখা দরকার।


১৭/ নিজে ইমেইজ তৈরী করে ব্যবহার করুন । যেমন : canva ও ফটোশপ দিয়ে তৈরী করুন ছবি । pexels,unplash সাইটগুলোর ফ্রি ইমেইজ ব্যবহার করতে পারেন তবে সে ইমজেইগুলোকেও একটু এডিট করে পোষ্ট করাই ভালো ।


অতিরিক্ত তথ্যঃ
এডসেন্স এপ্রুভাল পাওয়ার পর কখনো নিজের এডসে নিজে ক্লিক করবেন নাহ বা কাউকে ক্লিক করার জন্য বলবেন নাহ । তাহলে লিমিট বা সাসপেন্ড হতে পারেন ।
এক পেইজে ৫টার বেশি এডস না দেখানো ভালো । অতিরিক্ত এডস দেখালে সাইট স্লো হয়ে যাবে ।
আমি আশা করছি এই জিনিসগুলো যদি সঠিকভাবে অনুসরণ করতে পারেন তাহলে আপনিও সহজে গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাবেন । আমি ইতিমধ্যে ৭টা সাইটে এপ্রুভাল পেয়েছি এবং উপরে বলা কাজগুলো নিজে করেছি ।
নিয়মিত এডসেন্স সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ এমন তথ্য পেতে এবং বিভিন্ন ধরনের সমাধান পেতে আমাদের ওয়েবসাইট https://blog.bestuptoday.com ভিজিট করতে পারেন এবং ফেসবুক পেইজ ফলো করে রাখতে পারেন ।

6 thoughts on “গুগল এডস এপ্রুভাল পাওয়ার জন্য কিছু দিকনেদর্শনা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *